হতাশাগ্রস্থদের জন্য আল কুরআনের নির্দেশনা (ছন্দোবদ্ধ )




তোহফায়ে মমিন

মমিন মুসলমান, হইওনা পেরেশান,

হরহামেশা সাথে আছেন () রহিম রহমান,

হইওনা পেরেশান ।।

জুলুম করছ নিজের সাথে, গুনাহ করে দিনে রাতে,

নিরাশ হইওনা বান্দা () রহমতে তাহার,

সূরা যুমারেরই শান।। (৩৯:৫৩)

দুনিয়াতে চলতে গিয়ে, অশান্তি আর কষ্ট পেয়ে,

জিকিরে এলাহীর মাঝে () প্রশান্তি তোমার,

সূরা রাদেরই শান।। (১৩:২৮)

একা তুমি তারে ফেলি, হতাশ হয়ে নিরিবিলি,

মাবুদ মাওলা শাহ্ রগেরই () কাছে যে তোমার,

সূরা ক্বাফ এরই শান।। (৫০:১৬)

ছোট গুনায় আশা ছিলো, (যখন) পাহাড়সম গুনাহ হইলো,

(তখন) মাবুদ ছাড়া গুনাহ তোমার () কে করিবে মাফ,

সূরা ইমরানেরই শান।। (:১৩৫)

কৃতজ্ঞতায় ভরিয়ে মন, স্মরন করবে তারে যখন,

তিনিও স্মরন রাখবে তোমায় () বড়ই মেহেরবান,

সূরা বাকারারই শান।। (:১৫২)  

ভয় যদি তার থাকে দিলে, কঠিনও মসিবতও হইলে,

নিস্কৃতিরই রাস্তা দিবেন () রহমতে তাহার,

সূরা তালাকেরই শান।। (৬৫:০২)  

যত কষ্টে থাক তুমি, জানেন সবই অন্তর্যামী,

স্বস্তি আছে দুঃখের সাথে () বলেন মাবুদ আমার,

সূরা ইনশিরারই শান।। (৯৪:০৬)  

সকল কিছুর আশা ছেড়ে, ভরসা যে তার কাছে করে,

তিনিই যথেষ্ট হবেন () (কাজ) পূর্ণ হবে তার,

সূরা তালাকেরই শান।। (৬৫:০৬)

আবদুল্লাহ্ , বনশ্রী, ১৩/০৯/১২, (খ্রীঃ)

 


Post a Comment

0 Comments